গাওয়া ঘি রেসিপি

 

গাওয়া ঘি অনেক পদ্ধতিতে তৈরি করা যায় আজ আমরা যে পদ্ধতিটি আলোচনা করব সেটা হল ঘরে ঘি তৈরি করার সবচেয়ে সহজ উপায়। তাহলে আসুন আমরা দেখে নেই কি ভাবে সহজে গাওয়া ঘি তৈরি করা যায়।

উপকরনঃ
১। দুধের সর- 1 কেজি
২।পরিমাণ মত ঠাণ্ডা পানি
৩।ঘি তৈরির জন্য যা লাগবে- মাটির পাত্র বা মালসা- ১টি সর ব্লেন্ড করার জন্য
৪।ব্লেন্ডার অথবা শিল-পাটা- (সর বাটার জন্য)
৫।কাঠের চামচ ১টি

ধাপে ধাপে গাওয়া ঘি তৈরি পদ্ধতিতি


১. প্রথমে দুধের সর অল্প অল্প করে খুব মিহি করে ব্লেন্ড করে অথবা পরিষ্কার শিল-পাটায় বেটে নিন।

২. এবার মাটির পাত্রে মিহি করে ব্লেন্ড করা/ বাটা সর থেকে অল্প অল্প করে নিয়ে কাঠের পরিষ্কার ডাল ঘুটনি দিয়ে যত দ্রুত সম্ভব ততো দ্রুত ঘুটতে থাকুন।

ঘুটতে ঘুটতে দেখবেন মিহি সর একসময় মাখন বা বাটার আলাদা হয়ে যাবে ( এই কাজটি ডিম ফ্যাটানোর মেশিন দিয়েও করতে পারেন তবে ঘুটনি দিয়েই করা ভাল।)

৩. বাটার আলাদা হয়ে গেলে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে আবার ব্লেন্ড বা ঘুঁটা দিলে পানি ও আলাদা হয়ে মাখন বা বাটার হয়ে যাবে।

৪. যখন মাখন সবটুকু পরিষ্কার হয়ে পানির উপরে উঠে আসবে তখন পানি থেকে মাখন ছেকে তুলে নিন এবং পানি আলাদা করে রেখ দিন। ( এই পানি কে বাটার মিল্ক বলা হয় যা স্বাদে গন্ধে অতুলনীয়, এই বাটার মিল্ক পরে রুটি, পিঠা ইত্যাদি অথবা অন্য কিছুতে দিলে অনেক মজা হয়। )

৫. এবার মাখনে থকে পানি পুরা পুরি বের করার জন্য মাখন একটি পাতলা মসলিন কাপড়ের বেধে ঝুলিয়ে ৪-৫ ঘণ্টা রেখে দিন।

৬. মাখনে থকে পানি পুরা পুরি বের হয়ে যাবে তখন একটি নতুন পরিষ্কার ও গন্ধ বিহীন লোহার কড়াইে মাখনগুলি অল্প আঁচে অনবরত নাড়তে থাকুন।

বেশ কিছুক্ষণ নাড়ার পরে মাখন থকে থেকে ঘি বের হতে থাকবে। এটাই হল সেই বিখ্যাত গাওয়া ঘি। তবে ঘি কিন্তু এখনও সম্পূর্ণরূপে ঘি তৈরি হয়নি।

সবটুকু মাখন যখন পুড়ে কালো হয়ে যাবে এবং ঘি গাড় হয়ে সুন্দর সোনালি রং ধারণ করবে ও সুন্দর সুগন্ধ ছড়াবে তখন বুঝতে হবে আসল ঘি তৈরি হয়ে গেছে।

৭. ঘি ঠাণ্ডা হয়ে গেলে ছেঁকে নিতে হবে যেন পোড়া অংশ ঘি-য়ের সাথে মিশে না যায়। তারপর শুকনা পাত্রে সংরক্ষণ করতে হবে। ব্যাস তিরী হয়ে গেল বিখ্যাত গাওয়া ঘি।

বিঃ দ্রঃ মাখন আলাদা করার জন্য মাটির পাত্রই ব্যাবহার করা ভাল । স্টিল বা অন্যান্য তৈজসপত্র ব্যাবহার করলে মাখন নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

Leave a Reply

Item added To cart
X